আপনার পিসির মনিটরের বিভিন্ন সমস্য ও সমাধান ।




উইন্ডোজ চালু হওয়ার সময় মনিটর যদি ঝাপসা দেখা যায় তবে বুঝতে হবে মনিটরের রিফ্রেশ রেট ভুলভাবে সেট করা হয়েছে। যদি মনিটরে ছবি খুব বেশী কাঁপাকাঁপি করে বা ঝির ঝির কাঁপে, তবে মনিটরের রিফ্রেস রেট সঠিক আছে কি না তা দেখা দরকার। কম্পিউটারের রিফ্রেশ রেট বৃদ্ধি করে স্ক্রিনের ঝিরঝির কাঁপা দূর করা যায়। অনেক সময় মনিটরে কালো পর্দাও দেখা যেতে পারে। এজন্য-

কম্পিউটার চালু করুন অথবা কম্পিউটার চালু হওয়ার সময় Start উইন্ডো বার্তা দেখানোর সংগে সংগে F8 চেপে Safe Mode-এ কম্পিউটার চালু করুন। এবারStartমেনু থেকেSettings/Control Panel-এ ক্লিক করুন। পর্দায় Control Panel উইন্ডো আসবে।

উক্ত উইন্ডো থেকে Display আইকনে ডাবল ক্লিক করুন। এবার DisplayProperties উইন্ডো আসবে।
এরপর DisplayProperties উইন্ডোথেকেSettings ট্যাবে ক্লিক করে Advanced বাটনে ক্লিক করুন। এবার Plug and Play Monitor ডায়ালগ বক্স আসবে। উক্ত ডায়ালগ বক্সের Monitor ট্যাবে ক্লিক করুন। এবার MonitorSettings-এর Screen refresh rate: বক্সের ড্রপ ডাউন এ্যারোতে ক্লিক করে সঠিক refresh rate ঠিক করে OK করুন।

নোট: ১.১ উইন্ডোজ চালু হওয়ার সময় মনিটর যদি ঝাপসা দেখায় তবে বুঝতে হবে যেমনিটরেররিফ্রেশরেটভুলভাবেসেট করা হয়েছে।এটি ঠিক করতে কম্পিউটারচালুহওয়ার সময়স্টার্টিংউইন্ডোজ(StartingWindows)মেসেজ দেখানোর সংগে সংগে F8 চেপে Safe Mode-এ কম্পিউটার স্টার্ট করুন এবং উপরের বর্ণিত নিয়মে Refresh Rate ঠিক করুন। পুরানো মনিটর হলে রিফ্রেশ রেট হিসাবে ৬০ Hz এবং নতুন মনিটর হলে ৭৫ Hz থেকে ৮০ Hz সিলেক্ট করুন।এবার কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন।ম্যানুয়ালদেখেসঠিকRefresh Rate নিশ্চিত হয়ে Screen refresh rate: বক্সের ড্রপ ডাউন এ্যারোতে ক্লিক করে সঠিক refresh rate নির্বাচন করুন।

1.2 এ ছাড়া মনিটরের Refresh Rate বাড়ানোর পর মনিটর ডিসপ্লের সঙ্গে সঙ্গে যদি অস্বাভাবিক কোনোশব্দও শুনতেপান তবেদেরি নাকরে যত তাড়াতাড়িসম্ভব রিফ্রেশরেট পরিবর্তন করুন বা মনিটর বন্ধ করে দিন এবং আপনার কম্পিউ টার বিক্রেতার সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

1.3 উইন্ডোজ চালু হচ্ছে না অথচ কম্পিউটার এবং মনিটরে সুইচ অন করার সঙ্গে সঙ্গে ডিসপ্লে ঝাপসা দেখাচ্ছে সে ক্ষেত্রে অন্য মনিটর ব্যবহার করে দেখতে পারেন। যদি তারপরেও সমস্যা থেকে যায় তাহলে গ্রাফিক্স কার্ড পরীক্ষা করে দেখতে পারেন।

২. কম্পিউটারেররিফ্রেশ রেটবৃদ্ধিকরেস্ক্রিনের ঝির ঝির কাঁাপা দূর কনা যায়। রিফ্রেশ রেট ৭৫ হার্টস সিলেক্ট করেকরার পর স্ক্রিন মুহুর্তের জন্য কালো হয়ে যেতে পারে যা পর মুহুর্তেই মনিটর স্বয়ংক্রিয়ভাবে ঠিক হয়ে যাবে। নতুন রিফ্রেশ রেট পছন্দ হলে OK করুন। তবে অত্যধিক মাত্রায় রিফ্রেশ রেট মনিটরের ক্ষতি করতে পারে। মনিটরের ম্যানুয়েলথেকেআপনার মনিটরসর্বোচ্চকত রিফ্রেশরেট সাপোর্ট করেতা দেখে নিন।

3.1 যাদ মনিটরে ছবিবেশী কাঁাপা কাঁপিকরেতবেমনিটরের রিফ্রেশরেটসঠিক আছে কি না তা দেখুন।মনিটরের ম্যানুয়েলদেখেসঠিক Refresh Rate নিশ্চিত হয়ে সেটি বসান। যদি ম্যানুয়েল হারিয়ে ফেলে থাকেন তবে Refresh Rate ৬০ মেগা হার্টজে রাখুন।

3.2 এ ভাবে সমস্যার সমাধান না হলেমনিটরের কাছাকাছি কোন চৌম্বকীয় তরঙ্গ সৃষ্টিকারী কোন যন্ত্র যেমন- স্পিকার, মোবাইল ফোন ইত্যাদি আছে কি না তা পরীক্ষা করুন এবং থাকলে সেগুলো সরিয়ে দেখুন সমাধান হয় কিনা।

৪. অনেক সময় দেখা যায় কারো কারো কম্পিউটার স্ক্রিন খুব বেশী কাঁপতে থাকে যা চোখের জন্য বেশ যন্ত্রণাদায়ক এবং ক্ষতিকারকও। রিফ্রেশ রেট ৭৫ থেকে ৮৫-র মধ্যে নিয়ে এসে আপনি এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। তবে রিফ্রেশ রেট পরিবর্তেনের আগে আপনার মনিটর ঐ রিফ্রেশ রেট সাপোর্ট করে কিনা ম্যানুয়েল থেকে দেখে নিন।

৫. সুইচ টিপে কম্পিউটার চালু করার পর মনিটরে কিছুই না এসে কেবল কালো পর্দা দেখা যেতে পারে। অনেক কারণেই ব্যবহারকারীএধরনেরসমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। তবে আগে কাজ করে সঠিক নিয়মে কম্পিউটার বন্ধ করেছেন এমন ক্ষেত্রে এ সমস্যা দেখা দিলে মনে করা যেতে পারে যে, কম্পিউটারের মেমোরি অর্থাৎ র‌্যাম কাজ করছে না। এ ক্ষেত্রে শুরুতে ব্যবহারকারীকে র‌্যামের স্লট পরিব- র্তন করে দেখতে হবে। অর্থাৎ কেসিং খুলে র‌্যামটিকে তার স্লট থেকে খুলে নিয়ে পাশের স্লটটিতে লাগিয়ে দেখতে হবে।

মনিটরে রঙের ছোপছোপ দাগ যদি আপনার মনিটরে রঙের ছোপ ছোপ দাগ পড়ে কিংবা ছোট ছোট ফোটা পড়ে, তবে-

মনিটরের মেনু বা মনিটরের কন্টোলার সফটওয়্যার থেকে Degauss অপশন সিলেক্ট করে ঠিক করার চেষ্টা চালাতে পারেন। অনেকসময়ইএইসমস্যাহয়মূলতStraymagneticinterference এর কারনে।

এই সমস্যা সমাধানের একমাত্র উপায় হলো Degauss ফাংশন। এরপরও যদি সমস্যা থেকে যায় তবে ভালো কোন সার্ভিস সেন্টারে যোগাযোগ করুন। মনিটরের রেজুলেশন ঠিক করা

মনিটর কোন রেজুলেশনে ছবি দেখাবে সেটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। উইন্ডোজের ডিসপ্লে প্রোপার্টিজের সেটিংস ট্যাবথেকে রেজুলেশন ও রঙ (যেমন-৬৪০ х ৪৮০ , ৮০০ х ৬০০,১০২৪ х ৭৬৮ এবং ১৬ bit বা ৩২ bit কালার) সিলেক্ট করা যায়। এখান থেকে শুধু সীমিত সংখ্যক রেজুলেশন সিলেক্ট করা যায়। তবে আপনি চাইলে এখানে তালিকাবদ্ধ বিভিন্ন রকম রেজুলেশনের বাহিরেও বিভিন্ন রকম রেজুলেশন ও কালার ডেপথ সিলেক্ট করতে পারেন। কম্পিউটার যত বেশী উচ্চ রিফ্রেশ রেট সাপোর্ট করবে, ডিসপ্লেও তত বেশী ফ্লিকার মুক্ত হবে। আপনি যদি রিফ্রেশ রেট কনফিগার করতে চান তাহলে-

প্রথমেই Start>Settings/Control Panel-এ ক্লিক করুন। পর্দায় Control Panel উইন্ডো আসবে। উক্ত উইন্ডোর Display আইকনে ক্লিক করুন। এবার DisplayProperties উইন্ডো আসবে।
উক্ত উইন্ডোর Settings ট্যাবে ক্লিক করে Advanced বাটনে ক্লিক করুন। এবার Plug and Play Monitor উইন্ডো আসবে। উক্ত উইন্ডোর Adapter ট্যাবে ক্লিক করে List AllModes বাটনে ক্লিক করুন।

Download now

Size: 15.3MB

0 Comment "আপনার পিসির মনিটরের বিভিন্ন সমস্য ও সমাধান ।"

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন